Published On: Tue, May 1st, 2018

শবে বরাতে করণীয় ও বর্জনীয়

ইসলামি তমুদ্দুন তথা মুসলিম কৃষ্টিতে যেসব দিবস ও রজনী বিখ্যাত, এর মধ্যে একটি হলো শবে বরাত। শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাত ‘শবে বরাত’। শবে বরাত শব্দটি ফারসি। শব মানে রাত, বরাত মানে মুক্তি; শবে বরাত অর্থ মুক্তির রজনী। এর আরবি হলো ‘লাইলাতুল বারাআত’। হাদিস শরিফে একে ‘নিসফ শাবান’ বা শাবান মাসের মধ্যরাত বলা হয়েছে। ভারতীয় উপমহাদেশ, পারস্যসহ পৃথিবীর অনেক দেশের ফারসি, উর্দু, বাংলা, হিন্দিসহ নানান ভাষায় যা ‘শবে বরাত’ নামেই পরিচিত।
আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘হা মীম! শপথ! স্পষ্ট কিতাবের, নিশ্চয় আমি তা নাজিল করেছি এক বরকতময় রাতে; নিশ্চয় আমি ছিলাম সতর্ককারী। যাতে সব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নির্ধারিত হয়। এই নির্দেশ আমার তরফ থেকে, নিশ্চয় আমিই দূত পাঠিয়ে থাকি। এ হলো আপনার প্রভুর দয়া, নিশ্চয় তিনি সব শোনেন এবং সব জানেন। তিনি নভোমণ্ডল, ভূমণ্ডল এবং এই উভয়ের মাঝে যা আছে, সেসবের রব। যদি তোমরা নিশ্চিত বিশ্বাস করো, তিনি ছাড়া কোনো মাবুদ নেই, তিনি জীবন ও মৃত্যু দেন, তিনিই তোমাদের পরওয়ারদিগার আর তোমাদের পূর্বপুরুষদেরও। তবু তারা সংশয়ে খেলা করে। তবে অপেক্ষা করো সেদিনের, যেদিন আকাশ সুস্পষ্টভাবে ধূম্রাচ্ছন্ন হবে।’ (সুরা দুখান, আয়াত: ১-১০)।

মুফাসসিরিনরা বলেন: এখানে ‘লাইলাতুম মুবারাকা’ বা বরকতময় রজনী বলে শাবান মাসের পূর্ণিমা রাতকেই বোঝানো হয়েছে। (তাফসিরে মাযহারি, রূহুল মাআনি ও রূহুল বায়ান)। হজরত ইকরিমা (রা.) সহ কয়েকজন তফসিরবিদ সাহাবি থেকে বর্ণিত আছে, সুরা দুখানের দ্বিতীয় আয়াতে বরকতের রাত্রি বলে শবে বরাতকেই বোঝানো হয়েছে। (তাফসিরে মাআরিফুল কুরআন)।

হাদিস শরিফে আছে, হজরত মুআয ইবনে জাবাল (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) বলেছেন, আল্লাহ তাআলা অর্ধ শাবানের রাতে মাখলুকাতের দিকে রহমতের দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও বিদ্বেষ পোষণকারী ছাড়া আর সবাইকে ক্ষমা করে দেন। (সহিহ ইবনে হিব্বান: ৫৬৬৫)। হজরত আবু সালাবা (রা.) থেকে বর্ণিত, যখন অর্ধ শাবানের রাত আসে, তখন আল্লাহ তাআলা মাখলুকাতের প্রতি রহমতের দৃষ্টিতে তাকান; মুমিনদের ক্ষমা করে দেন, কাফিরদের ফিরে আসার সুযোগ দেন এবং হিংসুকদের হিংসা পরিত্যাগ ছাড়া ক্ষমা করেন না। (কিতাবুস সুন্নাহ, তৃতীয় খণ্ড, পৃষ্ঠা: ৩৮২)।

হজরত আয়িশা সিদ্দিকা (রা.) বলেন, একবার রাসুলুল্লাহ (সা.) নামাজে দাঁড়ালেন এবং এত দীর্ঘ সিজদা করলেন যে আমার ধারণা হলো তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন; আমি তখন উঠে তাঁর পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুলি নাড়া দিলাম, তাঁর বৃদ্ধাঙ্গুলি নড়ল; তিনি সিজদা থেকে উঠলেন এবং নামাজ শেষ করে আমাকে লক্ষ করে বললেন: হে আয়িশা! তোমার কি এ আশঙ্কা হয়েছে? আমি উত্তরে বললাম, ইয়া রাসুলুল্লাহ (সা.), আপনার দীর্ঘ সিজদা থেকে আমার আশঙ্কা হয়েছিল আপনি মৃত্যুবরণ করেছেন কি না। নবীজি (সা.) বললেন, তুমি কি জানো এটা কোন রাত? আমি বললাম, আল্লাহ ও আল্লাহর রাসুলই ভালো জানেন। তখন নবীজি (সা.) বললেন: এটা হলো অর্ধ শাবানের রাত; এই রাতে আল্লাহ তাআলা তাঁর বান্দাদের প্রতি মনোযোগ দেন; ক্ষমাপ্রার্থনাকারীদের ক্ষমা করে দেন, অনুগ্রহপ্রার্থীদের অনুগ্রহ করেন। আর বিদ্বেষ পোষণকারীদের তাদের অবস্থাতেই ছেড়ে দেন। (শুআবুল ঈমান, তৃতীয় খণ্ড, পৃষ্ঠা: ৩৮২)। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন: যখন শাবানের মধ্য দিবস আসবে, তখন তোমরা রাতে নফল ইবাদত করবে এবং দিনে নফল রোজা পালন করবে। (ইবনে মাজাহ)। ইবাদতের মধ্যে শ্রেষ্ঠ হলো নামাজ; সুতরাং নফল ইবাদতের মধ্যে শ্রেষ্ঠ হলো নফল নামাজ। প্রতিটি নফল ইবাদতের জন্য তাজা অজু বা নতুন অজু করা মুস্তাহাব। বিশেষ ইবাদতের জন্য গোসল করাও মুস্তাহাব। ইবাদতের জন্য দিন অপেক্ষা রাত শ্রেয়তর।

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন: যখন শাবানের মধ্যরাত আসে, তখন তোমরা রাতে নফল ইবাদত করো এবং দিনে রোজা পালন করো। (সুনানে ইবনে মাজাহ)। এ ছাড়া প্রতি মাসের ১৩,১৪ ও ১৫ তারিখ আইয়ামে বীজ-এর নফল রোজা তো রয়েছেই। যা আদি পিতা হজরত আদম (আ.) পালন করেছিলেন এবং আমাদের প্রিয় নবী (সা.) ও পালন করতেন; যা মূলত সুন্নত। সুতরাং তিনটি রোজা রাখলেও শবে বরাতের রোজার অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবে। এ ছাড়া মাসের প্রথম তারিখ, মধ্য তারিখ ও শেষ তারিখ নফল রোজা গুরুত্বপূর্ণ; শবে বরাতের রোজা এর আওতায়ও পড়ে। সওমে দাউদি বা হজরত দাউদ (আ.)-এর পদ্ধতিতে এক দিন পর এক দিন রোজা পালন করলেও সর্বোপরি প্রতিটি বিজোড় তারিখে রোজা হয়। সর্বোপরি রাসুলুল্লাহ (সা.) রমজান মাসের পর রজব ও শাবান মাসে বেশি নফল নামাজ ও নফল রোজা পালন করতেন।

শবে বরাতের সঙ্গে হালুয়া-রুটির একটি প্রচলন পরিলক্ষিত হয়। হালুয়া আরবি শব্দ, অর্থ হলো মিষ্টি বা মিষ্টান্ন। রাসুলুল্লাহ (সা.) মিষ্টি পছন্দ করতেন, এ কথা সুবিদিত; তিনি গোশতও পছন্দ করতেন, তা-ও অবিদিত নয়। যাই হোক, শবে বরাত হলো ইবাদতের রাত। দান-খয়রাত করা ও মানুষকে খাওয়ানো একপ্রকার ইবাদত। তবে এই দিন ও রাতকে হালুয়া-রুটি খাওয়ার রাতে পরিণত করে ইবাদত থেকে গাফেল হওয়া বুদ্ধিমানের কাজ নয়। তেমনি হালুয়া-রুটির ওপর ফতোয়া প্রদানও প্রজ্ঞাপ্রসূত নয়।

শবে বরাত উপলক্ষে নফল রোজা রাখা, নফল নামাজ পড়া, কিরাত ও রুকু-সিজদা দীর্ঘ করা; কোরআন তিলাওয়াত করা; দরুদ শরিফ বেশি বেশি পড়া; ইস্তিগফার অধিক পরিমাণে করা; দোয়া-কালাম, তাসবিহ তাহলিল, জিকির-আসকার ইত্যাদি করা; কবর জিয়ারত করা; নিজের জন্য, পিতা-মাতার জন্য, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব ও সব মোমিন মুসলমানের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করা এবং দেশ ও জাতির কল্যাণ ও সমৃদ্ধি কামনা করা।

শবে বরাতে করা উচিত নয়
আতশবাজি, পটকা ফোটানো, ইবাদত-বন্দেগি বাদ দিয়ে খামাখা ঘোরাঘুরি করা, অযাচিত আনন্দ-উল্লাস করা, বেহুদা কথাবার্তা ও বেপরোয়া আচরণ করা, অন্য কারও ইবাদতের বা ঘুমের বিঘ্ন ঘটানো, হালুয়া-রুটি বা খাবারদাবারের পেছনে বেশি সময় নষ্ট করা, ইবাদতে উদাসীনতা সমীচীন নয়।

মুফতি মাওলানা শাঈখ মুহাম্মাদ উছমান গনী: বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতির যুগ্ম মহাসচিব ও আহ্ছানিয়া ইনস্টিটিউট অব সুফিজম-এর সহকারী অধ্যাপক

Read also:

সমস্ত মেয়েদেরকে আহব্বান করছি প্লিজ বোন মাত্র ২ মিনিট ব্যয় করে লেখাটা পড়, আর সম্ভব হলে….

সমস্ত মেয়েদেরকে আহব্বান করছি প্লিজ বোন মাত্র ২ মিনিট ব্যয় করে লেখাটা পড় ! আর সম্ভব হলে ছেলে বা মেয়ে সকলেই পোস্টটি শেয়ার কর।

– বোন সেলফি দিও না ফেসবুকে!
– কেন?!!!
– কারন জাহান্নামের আগুন সহ্য করার ক্ষমতা আমাদের
নাই!!!

তুলতুলে গাল দুইটার কি হবে জান? তুলতুলে গালের ছিটে ফোঁটা অস্তিত্ব থাকবেনা.. শুধু আগুন থাকবে মুখমন্ডল জুড়ে! কি বিশ্বাস হয়না? বিশ্বাস না হলে # সূরা_ইবরাহীম_৫০ আয়াতের অর্থ দেখো!

এখানেই শেষ না বোন! আল্লাহর অবাধ্যতা করলে অনন্তকাল জাহান্নামে পুড়তে হবে! যখনই গায়ের চামড়া পুড়ে কয়লা হয়ে যাবে তখনই তার স্থলে নতুন চামড়া সৃষ্টি করে দিবেন আল্লাহ যাতে পাপীরা গুনাহের শাস্তি পরিপূর্ণ ভাবে ভোগ করে।

এটা আমার বানিয়ে বানিয়ে বলা গল্প না…
# সূরা_নিসা_৫৬_তম_আয়াত_এটি !

জীবনে যে কখনো নামায আদায় করেনি,পর্দা যে স্বপ্নেও ভাবতে পারেনা সেও কোনদিন বলবেনা কোরআনের আয়াত মিথ্যা! এখন বলো বোন! কার জন্য এবং কিসের জন্য তুমি নিজের উপর এমন লানত নিয়ে ঘুরছো! সামান্য কয়টা লাইক? নোংরা কিছু কমেন্ট? এসব দিয়ে
কি হবে তোমার? ডিমান্ড বাড়বে? কার কাছে?

নষ্ট হয়ে যাওয়া কিছু ছেলের কাছেই কেবল বাবা- মা মেরে পিটে মানুষ করতে পারেনি এমন কিছু ছেলে আর কিছু ব্যক্তিত্বহীন ছেলেই তোমার ছবিতে কমেন্ট করবে wow hot!

প্রকৃতই যারা পুরুষ তারা কখনো ঠুনকো লাইক, কমেন্ট দিয়ে তোমার সৌন্দর্য যাচাই করবেনা! তবে কার জন্য নিজেকে একটু একটু করে সস্তা করছো?

তুমি তো সস্তা জাতি নও! তুমি তো সেই জাতি যাদের জীবন্ত কবর দেয়ার প্রথা থেকে তুলে এনে পুরুষের জন্য চক্ষুশীতল কারীনি বানানো হয়েছে!

তুমি তো সেই জাতি যারা রাসূল (সাঃ) এর নবুয়ত প্রাপ্তির পর প্রথম ইসলাম কবুল করার সৌভাগ্য পেয়েছে!

তুমি তো সেই সে জাতি দুনিয়াতে থাকা অবস্থাতেই জান্নাতের নেত্রী হওয়ার সুসংবাদ পেয়েছে!

তুমি তো সেই জাতি যাদের পদতলে জান্নাতের ঘোষনা দেয়া হয়েছে! তুমি এতটা সস্তা নও যে নষ্ট হয়ে যাওয়া একদল কাপুরুষের লাইক, কমেন্ট নিয়ে তোমাকে নতুন করে জাতে উঠতে হবে!

সময় হারানোর পূর্বেই সব সেলফি-টেলফি সরাও বোন….

অন্যের মনোরঞ্জনের জন্য নিজেকে জাহান্নামী করার মত বোকা তুমি নও! সেই দিন আসবার পূর্বেই নিজেকে শুধরাও যেদিন আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব কোন কাজেই আসবেনা!

ওমা তওফিকী ইল্লা বিল্লাহ..

Facebook Comments

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>