Published On: Tue, May 1st, 2018

পৃথিবীর সবচেয়ে দামি খাবার, এর মূল্য কত জানেন?

সবচেয়ে দামি খাবার- দামি খাবারের দাম আর কতই হবে বলুন, নিশ্চয ১০ থেকে ১২ হাজার বা তার চেয়ে আরেকটু বেশি। যারা এমনটা ভাবছেন তারা পৃথিবীর সবচেয়ে দামি খাবারের দাম শুনলে হয়তো তাদের হৃদস্পন্দনই বন্দ হয়ে যাবে। কারণ পৃথিবীর সবচেয়ে দামি খাবারের দাম হাজারের ঘরে নেই, সেটা লাখ টাকায় গড়িয়েছে।

খাবারটির নাম ক্যাবিয়ার। মাত্র ২৫০গ্রাম খাবারের দাম ১ হাজার ৮৭৫ ইউরো মানে বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১ লাখ ৮৮ হাজার ৮৬০ টাকা। খাবারটি আসলে স্টার্জন মাছের ডিম।

সাধারণত এই মাছগুলোর দেখা মেলে উত্তর ও মধ্য এশিয়া, ইউরোপ এবং উত্তর আমেরিকায়। সবচেয়ে উৎকৃষ্টমানের ক্যাভিয়ার হলো ব্ল্যাক ক্যাভিয়ার। এই স্টার্জন মাছ শীতকালে নদীর মোহনায় পাওয়া যায়।

অত্যন্ত সুস্বাদু এর ডিম পশ্চিম ইউরোপে মানুষ ষোড়শ শতক ধরে নিয়মিত খাচ্ছে। শেক্সপিয়ার তার বিখ্যাত নাটক ‘হ্যামলেট’ এ ক্যাভিয়ারের কথা উল্লেখ করেছেন।

সোভিয়েত ইউনিয়ন ও পূর্ব ইউরোপে একটু মোটা ক্যাভিয়ার তাদের কাছে প্রধান খাদ্য হিসেবে বিবেচিত। তারা ক্যাভিয়ার ভোদকা সহযোগে খেয়ে থাকে। ক্যাভিয়ার প্রস্তুতির সময় ডিমের গা থেকে সতর্কতার সঙ্গে আঁশ এবং চর্বি সরিয়ে ফেলা হয়।

তারপর লবণ মাখিয়ে ছোট জারে কিংবা টিনে ভরে রাখা হয়। এর লবণাক্ত স্বাদ অনেক চমৎকার। দামি এ খাবার সবার ভাগ্যে জোটে না।

ক্যাভিয়ার মূলত খাওয়া হয় ব্রেড বা টোস্ট দিয়ে কিংবা ড্রিংকের সঙ্গে ছোট ছোট বিস্কুটের ওপর রেখে। ধূসর, হালকা সবুজ ও কালো ক্যাভিয়ার ছাড়াও লাল ক্যাভিয়ার ও আছে। এগুলো স্যামন মাছের ডিম দিয়ে বানানো হয়। তবে লালগুলোর স্বাদ তেমন ভালো না।
বিছানার পাশে রাত্রে একটি লেবুতে লবন মাখিয়ে রেখে দিন! আর দেখুন ফলাফল কি হয়

অলটারনেটিভ মেডিসিন অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টার অফ সি়ডনি একটি গবেষণায় জানিয়েছে, পাতিলেবুর রসের উপকারিতা পেতে সবসময় যে তা সেবন করতে হবে কিংবা শরীরে প্রয়োগ করতে হবে, তা নয়। অন্যভাবেও উপকার পাওয়া যেতে পারে লেবুর।

পাতিলেবুর গুণাগুণ নিয়ে ইতিমধ্যেই যথেষ্ট চর্চা হয়ে গিয়েছে। ভিটামিন ও অ্যাসিডের যথাযথ সমন্বয় একটি পাতিলেবুকে অব্যর্থ অ্যান্টিসেপ্টিক হিসেবে কাজ করতে সমর্থ করে, তা মানেন ডাক্তাররাও। পাতিলেবুর কিছু অসামান্য গুণের মধ্যে রয়েছে এগুলিও—
১. যাঁরা খুস্কির সমস্যায় ভুগছেন, তাঁরা চুলের গোড়ায় যদি পাতিলেবুর রস ম্যাসাজ করেন স্নানের মিনি়ট দশেক আগে, আর তারপর স্নান ও শ্যাম্পু করে নেন, তাহলে খুস্কির হাত থেকে মিলবে মুক্তি।

২. শরীরের যেসব জায়গায় চামড়া মোটা এবং শুষ্ক (যেমন গোড়ালি, কনুই, কিংবা হাঁটু) সেই সমস্ত জায়গায় পাতিলেবুর রস ঘষুন। দিন কয়েকের মধ্যেই দেখবেন চামড়া নরম হয়ে এসেছে।

৩. নিয়মিত লেবুর রসের শরবৎ পান করলে অতিরিক্ত মেদ ঝরে যাবে।

কিন্তু সম্প্রতি অলটারনেটিভ মেডিসিন অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টার অফ সি়ডনি একটি গবেষণায় জানিয়েছে, পাতিলেবুর রসের উপকারিতা পেতে সবসময় যে তা সেবন করতে হবে কিংবা শরীরে প্রয়োগ করতে হবে, তা নয়। অন্যভাবেও উপকার পাওয়া যেতে পারে লেবুর। কীরকম? গবেষণাপত্রে বলা হচ্ছে, রোজ রাত্রে একটি পাতিলেবুকে মাঝ বরাবর দু’ টুকরো করে তাতে একটু নুন মাখিয়ে রেখে দিন আপনার শোওয়ার বিছানার পাশে, আপনার মাথা থেকে সামান্য দূরে। তাতেই আপন‌ার শরীরের দারুণ উপকার হবে। কীরকম? আসুন, জেনে নেওয়া যাক—

১. পাতিলেবু এবং নুন ঘরের বাতাসকে পরিশোধিত করতে সাহায্য করে।

২. সারারাত বিশুদ্ধ বাতাস গ্রহণের ফলে আপনার মনঃসংযোগ, কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। পাশাপাশি আপনার শ্বাসযন্ত্রের উন্নতি হয় এবং মেজাজও ভাল থাকে।
বিছানার পাশে রাত্রে একটি লেবুতে লবন মাখিয়ে রেখে দিন! আর দেখুন ফলাফল কি হয়

Read also:

সাপের বিষ থেকে বাঁচাতে নারীকে ৭৫ মিনিট গোবর চাপা! অতঃপর…

প্রতিদিনের মতো রান্নার লাকড়ি কুড়াতে গিয়েছিলেন দেভেন্দ্রি। হঠাৎই ঝোপের আড়াল থেকে একটি সাপ এসে ছোবল দিলো তাকে। এরপর অদ্ভুতুড়ে গোবর চিকিৎসায় মারা গেলেন এই নারী। সাপের বিষ নামাতে তাকে ৭৫ মিনিট গোবরের নিচে চাপা দিয়ে রাখা হয়েছিল।

ঘটনাস্থল ভারতের উত্তরপ্রদেশের বুলেন্দশাহর এলাকার ঘটনা এটি। ৩৫ বছর বয়সী গৃহবধূ দেভেন্দ্রি আচমকা সাপের কামড় খেয়ে হতবিহ্বল হয়ে পড়েন। দৌঁড়ে যান স্বামীর কাছে। তাৎক্ষণিকভাবে বিভিন্ন ওষুধ দেয়া হয় তাকে। কিন্তু তাতে আস্থা না পেয়ে ডাকা হলো এলাকার নাম করা ওঝা মুরারেকে। মুরারে এসে দিলেন বিচিত্র এক চিকিৎসা। গোবর দিয়ে চাপা দিলেন দেভেন্দ্রিকে। এমনকি শ্বাস নেয়ার ব্যবস্থাও রাখলেন না। পাশে বসে পড়তে থাকতে যত তন্ত্র-মন্ত্র।

এভাবে ৭৫ মিনিট থাকার পর মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন দেভেন্দ্রি। পাড়া-প্রতিবেশির ভাষ্য, তারা চিৎকার-চেচামেচি শুনে এসে দেখেন দেভেন্দ্রিকে গোবর চাপা দিয়ে রাখা হয়েছে। মুরারে নামকরা ওঝা, তাই সবাই চুপচাপ দেখছিলেন কী হয়।

দেভেন্দ্রির স্বামী মুকেশ বলেন, আমি ভাবতেই পারিনি এমন কিছু ঘটতে যাচ্ছে। আমার বিশ্বাস ছিল সে সুস্থ হয়ে উঠবে। অন্যদিকে, মুরারের কথা, আমি দীর্ঘদিন সফলতার সাথে মানুষের চিকিৎসা করে আসছি। দেভেন্দ্রিকে বিষধর কোবরা ছোবল দিয়েছে। তবে, গোবরে চাপা থাকায় দম বন্ধ হয়ে থাকতে পারে সে কথা অস্বীকার করেননি তিনি। স্থানীয় থানা জানিয়েছে, এ বিষয়ে এখনও কোনো ধরনের অভিযোগ তাদের কাছে আসেনি।

Facebook Comments

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>