Published On: Sun, May 6th, 2018

ফ্রিজে ডিম রাখলে কি হতে পারে – ১০০ জনের মধ্যে প্রায় ৯০ জন এই ভুল কাজটা করে থাকেন

ফ্রিজে ডিম – ১০০ জনের মধ্যে প্রায় ৯০ জন এই ভুল কাজটা করে থাকেন। আর এই কারণে তাদের শরীরকেও যে বেশ ভোগান্তি পোহাতে হয়, সে বিষযে কোনও সন্দেহ নেই!

একাধিক গবেষণায় একথা প্রণামিত হয়েছে যে ফ্রিজের দরজার যে অংশে ডিম রাখার ব্যবস্থা করা হয়, সেখানে ভুলেও ডিম রাখা উচিত নয়।

বিশেষজ্ঞদের মতে, রেফ্রিজারেটরের এই অংশে চাপমাত্রা মারাত্মকভাবে ওঠা-নামা করে। যে কারণে ডিম খারাপ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা তো থাকেই। সেই সঙ্গে নানাবিধ ব্যাকটেরিয়া আক্রামণে ডিম খারাপ হয়ে যায়।

এসব ডিম খেলে শরীরের যে কী হাল হতে পারে, তা নিশ্চয় আর বলে দিতে হবে না। সেই কারণে এবার থেকে ভুলেও ফ্রিজের দরজায় ডিম রাখবেন না।

পরিবর্তে একটি এয়ার টাইট পাত্রে ডিম রেখে তা ফ্রিজের পেটের ভিতরে রাখবেন। এমনটা করলে একটা নির্দিষ্ট মাত্রায় ডিমগুলো থাকবে। ফলে সেগুলো খারাপ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা কমবে।

প্রসঙ্গত, আরও কতগুলো বিষয় মাথায় রাখতে হবে।

যেমন- রান্না করা ডিম ভুলেও ৩-৪ দিনের বেশি ফ্রিজে রাখা চলবে না। এর বেশি সময় ফ্রিজে রেখে সেই খাবার খেলে শরীর খারাপ হতে পারে। আর কাঁচা ডিম কখনই ৩০ দিনের বেশি রেখে খাবেন না।

এই নিয়ম গুলো মেনে ফ্রিজে ডিম রাখলে খাবারটির শরীরে উপস্থিত একাধিক উপকারী উপাদান, যেমন- ভিটামিন-এ, ভিটামিন বি২, বি১২, বি৫, ভিটামিন ডি, ই, বায়োটিন, কোলিন, ফলিক অ্যাসিড এবং আয়রন একেবারে ঠিক ঠিক অবস্থায় থাকবে। ফলে এমন ডিম খেলে নানাভাবে শরীরের উপকারও হবে।
===========================
গোড়ালিতে হঠাৎ ব্যথা – হাঁটার ক্ষমতা হারাতে না চাইলে জেনে নিন কী করবেন

গোড়ালিতে হঠাৎ ব্যথা – আমাদের শরীরের সবটা ভার সারাদিন যে অঙ্গটিকে বয়ে বেড়াতে হয় সেটি হচ্ছে পা। হাঁটবার সময় আমাদের স্বাভাবিক ওজনের ১.২৫ গুন বেশি ও দৌড়বার সময় স্বাভাবিক ওজনের ২.৭৫ গুন বেশি ওজন আমাদের শরীর পায়ের ওপর ফেলে। তাই খুব স্বাভাবিকভাবেই প্রতিদিনের নানা কাজ কর্মের পর গোড়ালিতে বা পায়ের নীচে ব্যথা হওয়াটা বেশ সাধারণ ব্যাপার।

১. প্লান্টার ফেসিয়াটিস লিগামেন্ট গোড়ালির হাড়ের সাথে যুক্ত থাকে। এই লিগামেন্টে খুব বেশি চাপ পড়লে গোড়ালির সাথে যুক্ত টিস্যুগুলি উদ্দীপ্ত হয়ে ওঠে, যার ফলে ব্যথা হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অনেকক্ষণ বিশ্রাম নেয়ার পর বা সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর ব্যথা বেশি অনুভব হয়।

২. পায়ের পাতা ফ্ল্যাট হলে গোড়ালিতে ব্যথার সম্ভাবনা বাড়ে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে টিনএজারদের এই সমস্যা হয়। এই বয়সে গোড়ালির হাড় পূর্ণতা পায় না। খুব দ্রুত ক্ষয় হয়।

৩. গোড়ালির হাড় সম্পূর্ণ গঠন হওয়ার আগে বেশি হিল জুতো পরলেও ব্যথা হয়। দীর্ঘদিন ধরে খুব শক্ত জুতো ব্যবহারের ফলে গোড়ালিতে চাপ পড়ে। এতে গোড়ালির পেছন দিক থেকে অথবা গোড়ালির ভেতর থেকে ব্যথা অনুভব হয়। পরে ক্রমশই বাড়তে থাকে।

৪. পায়ের পেছনের দিকে নার্ভে চাপ পড়লেও গোড়ালি ব্যথা হয়।

৫. খুব বেশি এক্সারসাইজ, খেলাধুলো এবং হাঁটাচলা করে কাজ করলে গোড়ালির হাড়ে খুব চাপ পড়ে, যা থেকে হাড়ে চিড় ধরে। মূলত যারা দৌড়ায় তাদের এই সমস্যা থেকে গোড়ালিতে ব্যথা হয়।

৬. বিভিন্ন অসুখ থেকে হতে পারে হিল পেইনের সমস্যা। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ৭-১৫ বছরের মধ্যে বাচ্চাদের গোড়ালিতে ব্যথা হয়। অস্টিওস্পোরোসিস থাকলেও গোড়ালিতে ব্যথা হয়।

৭. রক্তে ইউরিক অ্যাসিড বেড়ে গেলে, বোন সিস্ট থাকলে হিল পেন হয়।

জেনে নিন কখন ডাক্তার দেখাবেন?

১. গোড়ালি ফুলে গেলে।

২. জ্বরের সাথে গোড়ালিতে ব্যথা ও অসাড় হলে।

৩. হাঁটার সমস্যা হলে, পা ভাঁজ করতে অসুবিধা অথবা টো দিয়ে দাঁড়াতে সমস্যা হলে।

৪. একসপ্তাহের বেশি গোড়ালিতে ব্যথা থাকলে, হাঁটা কিম্বা দাড়ানো অবস্থা ছাড়াও ব্যথা করলে দেরি না করে অবশ্যই বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

গোড়ালির ব্যথায় কী করবেন?

১. হিল পেইনের সমস্যা থেকে বাঁচতে নরম জুতো ব্যবহার করুন। শক্ত জুতো বা উঁচু-নিচু জায়গায় বেশি হাঁটা চলবে না।

২. মাসল পেইন থাকলে অবশ্যই ওজন নিয়ন্ত্রণ করা উচিত।

৩. ভিটামিনের অভাব থাকলে তা নিয়ন্ত্রণ করা উচিত।

৪. ভিটামিন-সি ও ভিটামিন-ই বেশি করে খেতে হবে।

৫. বেশি করে সবুজ শাক-সবজি ফল খাওয়া উচিত।

৬. ব্যথা এড়াতে কর্ড লিভার অয়েল উপকারি।

৭. সামুদ্রিক মাছ খেতে হবে।

৮. বেশি করে পানি পান করতে হবে।

৯. তেল-ঝাল জাতীয় খাবার বেশি খাওয়া চলবে না।

১০. ডাবের পানি ও ফল বেশি করে খেতে হবে।

বেশিদিন স্থায়ী ব্যথা হলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

Read also:

একটি রসুনের টুকরো সারা রাত কানের মধ্যে ঢুকিয়ে রাখুন আর সকালে উঠে দেখুন তার চমৎকার ফলাফল…

রসুন ছাড়া ভারতীয় রান্না অসম্পূর্ণ। সুগন্ধযুক্ত গন্ধ এবং স্বাদ ছাড়াও রসুন শরীরের গরম, রোগপ্রতিরোধ এবং সংক্রমণ নিরাময়ের জন্য প্রমাণিত হয়েছে !
এখানে রসুনের কিছু অপ্রত্যাশিত স্বাস্থ্য এবং সৌন্দর্যে ব্যবহারের গুন এনেছি !

১। চুল ঝড়ে পড়ার হাত থেকে বাঁচায়
এক কোয়া রসুনের টুকরো কেটে মাথার তালুতে ঘোসুন। রসুনে থাকা প্রাকৃতিক তেল চুল পড়ার হাত থেকে রক্ষা করে এবং চুলের গোড়া মজবুত করে ।
২। রসুনের চা ঠান্ডা লাগা এবং সর্দি থেকে বাঁচায়

রসুন চা সবচেয়ে সুস্বাদু চা হয়। রসুন চা তৈরি করতে দুটো রসুনের কোয়ার সাথে লবঙ্গ ফুটন্ত জলে দিন, আপনার স্বাদ অনুযায়ী আদা ও মধু যোগ করুন। আপনি ১০ মিনিটের মধ্যেই ভাল বোধ করবেন ।
৩। রসুন ত্বকের ফুসকুরি দূর করতে সাহায্য করে
কিছু রসুনের তেল ফুসকুরি ওলা ত্বকে লাগান এবং চক্রাকারে ম্যাসাজ করুন। এটি অস্বস্তি থেকে মুক্ত এবং ঐ এলাকাটি মসৃণ করে এবং ফুসকুরি মুক্ত করে তুলবে।
৪। রসুন কানের ব্যাথা দূর করে

কানের ব্যাথা খুবই কষ্টকর। একটি রসুনের কোয়া কানে দিয়ে রাখুন সারা রাত আর দেখুন পরের দিন কেমন তাজা অনুভব করবেন যা আগে কখনও করেননি ।
৫। ডাইবেটিসের সাথে যুদ্ধ করতে সাহায্য করে রসুন
রসুন শরীরে উচ্চ ইনসুলিনের উৎপাদন কম করে। আর শরীরে অধিক গ্লুকোজের মাত্রা কমায়। একজন ডাইবেটিক রোগীর রোজ রসুন খাওয়া দরকার, চা বা রান্নার মধ্যে দিয়ে ।
৬। রসুন রক্ত চাপ কমায়

যদি হাইপারটেনশান রোগী দৈনিক ২-৩ টে করে রসুন চেবায়, তবে তাদের রক্তচাপের মাত্রা স্বাভাবিক পর্যায়ে নেমে যায়!
৭। গাঁঠের ব্যথা থেকে মুক্তি দেয় রসুন
যেখানেই ব্যথা হয়, সহজেই রসুনের তেল দিয়ে ম্যাসাজ করুন এবং ব্যথা এবং অস্বস্তি থেকে নিজেকে মুক্ত করুন। প্রতিদিন এটি ব্যবহার করলে অস্টিওপরোসিস, অস্টিওমালিয়া এবং আর্থ্রাইটিসের এর মত রোগের ব্যথাও কমাতে পারে।
মিলনে যে বিষয়টি নারীদের চরম পরিতৃপ্তির সন্ধান দেয়

হিন্দুস্তান টাইমস এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, নতুন এক গবেষণা বলছে, নারীরা যৌনকর্মের সময় যদি তাদের দৈহিক অনুভূতিগুলোতে আরো বেশি মনোযোগ দেন এবং আরো বেশি সেক্সি চিন্তা-ভাবনা করেন তবে চরম যৌনসুখ উপভোগ করবেন তারা।

গবেষকরা দেখেছেন, যে সব নারীরা প্রতিবার যৌনতার সময় চরম সুখের সন্ধান পান তাদের চিন্তায় সেক্সি বিষয়গুলো বেশি বেশি কাজ করে। আর যাদের মাথায় তা আসে না তারা সব সময় চরম সুখে পৌঁছতে পারেন না। এই গবেষণা ২৫১ জন ফরাসী নারীর ওপর পরিচালিত হয় যাদের বয়স ১৮ বছর থেকে ৬৭ বছর ছিলো।
প্রথম দলে ১৭৬ জন নারীকে বেছে নেওয়া হয় যারা প্রতিবার সেক্সের ক্ষেত্রে চরম সুখ পেয়েছেন।

আর ৭৫ জন নারীরা অন্য দলে যারা নিয়মিত সুখ পান না। অংশগ্রহণকারী সবাই নিয়মিত সেক্স করতেন। আবেগ, চিন্তা-ভাবনা এবং আচার-আচরণের বিষয়ে তাদের নানা প্রশ্ন করা হয়।
দেখা যায়, মিলনের সময় সেক্সি চিন্তার অভাব পরিতৃপ্তি দেয় না। অথচ যারা এসব চিন্তায় উত্তেজিত থাকেন তারা সহজেই পরিতৃপ্ত হন।

বেলজিয়ামের লুভেইন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ও গবেষক প্যামতেল ডি সুদার বলেন, আমরা ধারণাও করিনি যে সঙ্গমের সময় নারীর চিন্তা-ভাবনা তাদের চরম সুখের সন্ধান দেয়। ‘সেক্সোলজিস’ জার্নালে প্রকাশিত এই প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, চেহারা এবং দৈহিক সৌন্দর্যের বিষয়ে নানা চিন্তা নারীদের উত্তেজক চিন্তাকে বাধা দিতে পারে।

Facebook Comments

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>